• শিরোনাম

    অটো ইজিবাইকের বেপরোয়ায় বাড়ছে দুর্ঘটনা

    মোঃ দিপু আহমেদ | মঙ্গলবার, ১৩ মার্চ ২০১৮ | পড়া হয়েছে 549 বার

    অটো ইজিবাইকের বেপরোয়ায় বাড়ছে দুর্ঘটনা

    অটো ইজিবাইকের বেপরোয়ায় বাড়ছে দুর্ঘটনা

    অটো ইজিবাইকগুলো প্রতিনিয়ত চলছে বেপরোয়াভাবে। এতে প্রতিনিয়ত যানজটসহ ঘটছে নানাহ দুর্ঘটনা। দামে অনেক কম। গ্রাম্য ভাষায় যাকে বলে সস্তা। আর আমাদের বাঙালি জাতি সস্তা পেলে বস্তা বাধার অভ্যাস বেশ ভালো। একটি ইজিবাইক ষাট থেকে সত্তর হাজার টাকার মধ্যেই একেবারে নতুন কিনতে পাওয়া যায়। আবার পনেরো থেকে বিশ হাজার টাকা নগদ টাকা দিলে নাকি বাকি টাকা কিস্তিতেও কিনতে পাওয়া যায়।

     

    দাম কম হওয়ায় তাই অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এগুলো চালাচ্ছে রিকশা ও ভ্যান চালকেরা অদক্ষতার সাথে। তাই রিক্সা, ভ্যানগাড়ি থেকে সরাসরি কোনো প্রকার ড্রাইভিং অভিজ্ঞতা ছাড়াই চলে যায় ইজিবাইকে কারণ এতে রোজগার বেশি। প্রতিদিন রাস্তায় চলতে গিয়ে প্রায়ই দেখা যায় অটো উল্টে খাদে পড়ার দৃশ্য কিংবা রোডের পীচঢালায় গ্লাস ভাঙ্গাচুড়ার দৃশ্য। বিশেষ করে ইজিবাইকের বেপরোয়ার স্বীকার মোটরসাইকেল অারোহীরা।

     

    তারা মারাত্মক দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত। গত সোমবার উপজেলার মেরকোটা এলাকায় এক মোটরসাইকেল অারোহী তেমনি এক দুর্ঘটনার শিকার হয়। এমনিভাবে প্রতিনিয়ত ছোট বড় কত দুর্ঘটনা ঘটেই চলছে এখানে সেখানে আমাদের অজান্তে।

     

    তাছাড়া প্রতিদিনই রাস্তায় বাড়ছে নতুন নতুন ইজিবাইকের সংখ্যা। এক কথায় কম টাকায় মচমচা ভাজা যাকে বলে গ্রামের মানুষ। অথচ ইজিবাইকের এই ড্রাইভারদের নেই কোনো প্রশিক্ষণ, গাড়ির নেই কোনো রেজিস্ট্রেশন, নেই ফিটনেস, ড্রাইভারদের নেই কোনো বয়সের মাপকাঠি। কোনো রকমে শিখে না শিখেই নেমে পড়ছে রাস্তায়।

     

    এভাবেই ওরা ঝুঁকি নিয়ে দেদারছে বেপরোয়াভাবে চালাচ্ছে ইজিবাইক। ফলে প্রতিদিন ঘটাচ্ছে দূর্ঘটনা আর কেড়ে নিচ্ছে তাজা তাজা প্রাণ, খালি করে দিচ্ছে কত মায়ের বুক।

     

    অনেক সময় নিজেরাও দিচ্ছে অাত্মঘাতিপ্রাণ। অতিরিক্ত অটো ইজিবাইকের কারণে রাস্তায় স্বাভাবিক ভাবে চালাতে পারছে না অন্যান্য যানবাহনগুলো। অার নিরাপদে চলাচল করতে পারছে না পথচারীরাও।

    এসব ইজিবাইকের ব্যাটারী চার্জ করতে অধিক বিদ্যুৎ খরচ হয়। ফলে বিদ্যুৎ গ্রাহকরা লোডশেডিং এর কবলে পড়ছে হরহামেশা। অনেকসময় অবৈধভাবে ব্যাটারী চার্জ করায় একদিকে যেমন বিদ্যুতের অপচয় হচ্ছে। অপরদিকে ঠিক তেমন রাজস্ব হারাচ্ছে সরকারের পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি। ফলে বিদ্যুৎ গ্রাহকরা লোডশেডিংয়ের কবলে পড়ে কাঙ্খিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

    সরকারের কোনো প্রকার অনুমোদন কিংবা বাধ্যবাধকতা না থাকায় এখন যে কেউ ইজিবাইক চালাতে পারছে। ফলে বালক থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত এখন ঝুঁকে পড়েছে ইজিবাইকের দিকে। তাই বাড়ছে দুর্ঘটনাও। এ দুর্ঘটনা এড়াতে ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণ করে যানজট নিরসন ও বিদ্যুৎ অপচয় রোধে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতনমহল।

     

     

    লেখকঃ মোঃ দিপু আহমেদ

    সম্পাদক ও প্রকাশক

    নবীনগর ৭১ ডট কম

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    শয়তানের কান্না

    ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 616 বার

    কে এই বৃদ্ধ…

    ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 573 বার

    জামাই হিসেবে সাংবাদিকরা কেমন?

    ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 526 বার

    পাপ ( ছোট গল্প)

    ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 437 বার

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে nabinagar71.com