• শিরোনাম

    নবীনগরের সন্তান অপূর্বা বর্ধন অরুন্ধতী

    ৭১ নিউজ ডেস্ক | সোমবার, ০৯ অক্টোবর ২০১৭ | পড়া হয়েছে 3380 বার

    নবীনগরের সন্তান অপূর্বা বর্ধন অরুন্ধতী

    দ্যা ব্লু হোয়েল চ্যালেঞ্জ। এটি অনলাইন গেম।অালোচিত এ গেম খেললে নিশ্চিত মৃত্যু।সারা পৃথিবীতে অাড়াই শতাধিক ব্যাক্তির এই গেম খেলে মৃত্যু হলেও বাংলাদেশে প্রথম শিকার অপূর্বা বর্ধ্ধন অরুন্ধতী। সারা বাংলাদেশে তোলপাড় চলছে অরুন্ধতীর মৃত্যু নিয়ে। ঢাকার হলিক্রস স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী অরুন্ধতীর। দূর্ভাগ্য জনক হলেও সত্য অপূর্বা বর্ধন অরুন্ধতী অামাদের নবীনগরের সন্তান!! ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার নবীনগর উপজেলার সলিমগঞ্জ ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী কাদৈর বর্ধন বাড়ীর এডভোকেট সুব্রত বর্ধন ও সানি বর্ধনের কন্যা এই অপূর্বা বর্ধন অরুন্ধতী।

    শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের এক সময়ের চেয়ারম্যান (স্বাধীনতার পূর্ব) গোপাল ভূইয়ার দৌহিত্র (মেয়ের ঘরের নাতি) সুবীর বর্ধন এর মেয়ে অপূর্বা বর্ধন অরুন্ধতী। ঢাকায় সেন্ট্রাল রোডের ৪৪ নম্বর বাড়ীর একটি ফ্লাটে দীর্ঘদিনধরে থাকেন এই পরিবার।

    গত বৃহষ্পতিবার বাসায় ঝুলন্ত অবস্থায় অরুন্ধতীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।তার হাতে অাঁকা ছিলো ব্লু হোয়েল বা নীল তিমি।

    কি এই ব্লু হোয়েল?
    ( Blue whale ) গেমের আদ্যপান্ত।
    বাংলাদেশেও পৌঁছে গেছে ‘ ব্লু হোয়েল গেইম।
    আপনি আপনার ফোনের
    অ্যাপ স্টোর , প্লে স্টোর , ইন্টারনেট বা গুগল কোথাও খুঁজে পাবেন না এই ‘ ব্লু হোয়েল ‘গেম , খুঁজে পেতে পারেন কারো পাঠানো কোনো গোপন লিংকের মাধ্যমে, আপনার সোসাল মিডিয়া’য় অপরিচিত কোন strange এর আইডি থেকে আপনার ইনবক্স এ, নাহয় সোসাল
    মিডিয়াতে ব্রাউজ করতে করতে হঠাৎ কোথাও । এটি একটি সুইসাইড গেইম অর্থাৎ গেম খেললে মৃত্যু অনিবার্য। ব্লু হোয়েল ‘ বা Blue whale এর অর্থ নীল তিমি । নীল তিমিরা মৃত্যুর আগে সাগরের তীরে উঠে আসে – তারা
    আত্মহত্যা করে বলে অনেকের ধারণা ! একারণেই
    গেমের নাম রাখা হয়েছে ‘ Blue whale ‘ বা নীল তিমি । মনে রাখবেন – গেমটি বাধ্য করে তার ইনস্টলকারীকে সবগুলো স্তর খেলার জন্য ।
    ব্লু হোয়েল ‘ গেমটি ৫০ টি লেভেলে/টাক্স এ বিভক্ত।
    F57 নামক রাশিয়ান হ্যাকার টিম গেমটি তৈরি করে । ২০১৩ সালে তৈরি হয়েছিলো গেমটি , কিন্তু ২০১৫ সালে VK. com নামক সোশ্যাল মিডিয়ায় তুমুল জনপ্রিয়তা পায়, এবং প্রচুর ডাউনলোড হয় গেমটি । phillip budhekin)
    ফিলিপ বুদেকিন নামক রুশ হ্যাকার যে কিনা
    সাইকোলজির ছাত্র ছিলো এবং ভার্সিটি থেকে
    বহিষ্কার হয়েছিলো – তার মাথার বুদ্ধি থেকেই জন্ম
    নেয় এই গেমটি । রাশিয়ান আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তাকে গত মে মাসে গ্রেফতারের পর সে জানায়
    হতাশাগ্রস্হদের পৃথিবী থেকে নিশ্চিহ্ন করে দেবার
    জন্যই সে গেমটি বানিয়েছে। তার ভাষায় the are biological waste of society.
    and I want to distinguished normal (people) from the biological waste by suicide of them itself.
    রাশিয়ায় এ গেম খেলে মৃতের সংখ্যা ১৫১ জন , এবং রাশিয়ার বাইরে মারা গেছে ৫০ জন । জুলিয়া ওভা ও ভের্নিকা ওভা নামক দুই বোন প্রথম এই গেইমের শিকার। গেমটির ৫০ তম লেভেলে গিয়ে ছাদ থেকে লাফিয়ে ওরা সুইসাইড করেছিলো। জুলিয়া ওভা মৃত্যুর ঠিক আগে সোশাল নেটওয়ার্কে নীল তিমির ছবি আপলোড দিয়ে
    লিখেছিলো – ‘ The end ! ‘
    গেমটি মূলত একটি ডার্ক ওয়েভের ( dark wave ) গেম । ডার্ক ওয়েভ হলো ইন্টারনেটের অন্ধকার জগৎ । মনে রাখবেন – গেমটি আপনি একবার ডাউনলোড করলে আর কখনোই আনইনস্টল করতে পারবেন না । গেমটি আপনার
    ফোনের সিস্টেমে ঢুকে আপনার আপনার আই পি এড্রেস , মেইলের পাসওয়ার্ড , ফেসবুক পাসওয়ার্ড , কনট্যাক্ট লিস্ট , গ্যালারী ফটো এমনকি আপনার ব্যাংক ইনফর্মেশান ! আপনার লোকেশান ও তারা জেনে নিচ্ছে ! ‘ ব্লু হোয়েল ‘ গেম ওপেন করা মাত্র আপনাকে একজন এডমিন পরিচালনা শুরু করবে । আপনাকে জিজ্ঞেস করবে
    – ‘ গেমটি খেলা শুরু করলে আপনি কোনোভাবেই এর থেকে বেরিয়ে আসতে পারবেন না , আপনি সর্বশেষে মৃত্যু বরণও করতে পারেন , আপনি কি চ্যালেন্জ গ্রহন করতে আগ্রহী ? ‘
    আপনি ইয়েস বা নো অপশনের মধ্যে ‘ ইয়েস ‘ অপশন ক্লিক করা মাত্রই পা দিয়ে দেবেন মৃত্যু ফাঁদে । গেমটির প্রথম দশটা লেভেল খুবই আকর্ষনীয় । ইউজার এডমিন কিছু মজার মজার নির্দেশনা দেন – যেমন রাত তিনটায় ঘুম থেকে উঠে হরর ছবি দেখা , চিল্লাচিল্লি করা , উঁচু ছাদের কিনারায় হাঁটাহাঁটি করা , পছন্দের
    খাবার খাওয়া ইত্যাদি নির্দেশনা দিতে দিতে এডমিন হাতিয়ে নেবেন আপনার পার্সোনাল ইনফরমেশন । প্রথম দশ টা লেভেল পার করার পর আপনাকে তৈরি করা হবে পরবর্তী দশটি লেভেলের জন্য । পনেরো লেভেল পর্যন্ত
    চলবে আপনার ইনফরমেশান হাতানোর কাজ ! পনেরো লেভেলের পর আপনাকে কঠিন মিশন দেয়া শুরু হবে ! যেমন অ্যাডমিন আপনাকে বলতে পারে আপনার হাতে ব্লেড দিয়ে নীল তিমির ছবি আঁকুন ! প্রথম বিশটা চ্যালেন্জ অতিক্রম করার পর অ্যাডমিন তার কৌশল পরিবর্তন করতে শুরু করে । আপনি টেরই পাবেন না প্রথম বিশ ধাপে সংগ্রহ করে ফেলা আপনার তথ্যের উপর ভিত্তি করে আপনাকে মোহাক্রান্ত বা হিপনোসিস পদ্ধতি প্রয়োগ শুরু করা হবে। আপনি তখন ভাববেন এই গেম ছাড়া আপনার বেঁচে থাকা অসম্ভব । আপনাকে শীতের দিনে খালি গায়ে ঘুরতে বলা
    হবে , বাবার পকেট থেকে টাকা চুরি করা , বন্ধুর
    মোবাইল চুরি করা , আপনার সবচেয়ে প্রিয় বন্ধুটার সাথে দুর্ব্যবহারের মিশন দেয়া হবে আপনাকে ! আবার এসবের প্রমাণের ছবি বা ফটো এডমিনকে পাঠাতে হবে আপনার ! এভাবেই কৌশলে বন্ধু ও পরিবারের সদস্যদের
    থেকে কৌশলে আলাদা করে ফেলা হবে আপনাকে এবং আপনি পৌঁছে যাবেন পঁচিশ লেভেলে !
    পঁচিশ লেভেলের পর নির্দেশনা আসবে মাদক বা ড্রাগ নেবার ! এভাবেই সম্মোহিত করে করে আপনাকে তিরিশ লেভেল পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হবে । তিরিশ তম লেভেল আপনি অতিক্রম করার পর গেম এডমিন হঠাৎ আপনার সাথে একটু চিট শুরু করবে !একত্রিশ তম লেভেল আনলক করবে না , এদিকে আপনি হয়ে উঠবেন ক্রেজী।href=”http://nabinagar71.com/wp-content/uploads/2017/10/IMG_20171009_181603.jpg”>IMG_20171009_181603
    তারপর কিছুদিন আপনাকে সারপ্রাইজ দিয়ে হঠাৎ এডমিন – বলবে একত্রিশ তম লেভেল আনলকড ! আপনার নগ্ন ছবি চাওয়া হবে এই স্তরে ! আপনি হিপনোসিস ও মাদকের কারণে নিজের নগ্ন ছবি পাঠাতেও চিন্তা
    করবেন না , ড্রাগ নেবার র মাত্রা বাড়াতে থাকবেন
    আপনি ! এরপর নির্দেশনা আসবে আপনার ভালোর মানুষের সাথে সেক্স করে গোপনে ছবি তুলে আপলোড করতে বা নিজের শরীরে একাধারে শ খানেক সুঁইফোটাতে এবং ফটো আপলোড করে পাঠাতে । এভাবেই চলে যাবেন আপনি চল্লিশ তম লেভেলে !
    এবার আপনি ভীত হয়ে গেমার টিমকে অনুরোধ করবেন আপনাকে মুক্তি দেবার জন্য ! আপনি কাঁদবেন ,হাতজোড় করবেন , চাইবেন গেমটি আনইনস্টল করার জন্য ! তখন শুরু হবে ব্ল্যাকমেইলিং ! গেমার টিম বা এডমিন
    তখন আপনারই পাঠানো সকল তথ্য ফাঁস করে দেবার হুমকি দেবে , হুমকি দিব্র যে তারা আপনার পরিবার পরিজনের হ্মতি করবে।
    আপনি বাধ্য হয়ে প্রবেশ করবেন একচল্লিশ তম স্তরে ! একচল্লিশ থেকে ঊনপন্চাশ তম লেভেলে আপনি প্রচন্ড হতাশ আর মাদকাসক্ত হবেন ……. পন্চাশ তম স্তরে আপনাকে মুক্তির শর্ত দেয়া হবে ! বলা হবে আপনাকেনিজের শরীরে এডমিনের দেওয়া একটা ড্রাগ এর কম্বিনেশন করে তা আপনার শরীরে পোষ করে তাদের
    কে ছবি পাঠাতে। এমন সব ড্রাগ এর নাম বলবে যেগুলি আপনি খুব সাধারন ভাবেই ফার্মেসিতে পাবেন। এবং নিশ্চিত দশ তলার উঁচু কোনো ছাদের একেবারে কিনারায় দাঁড়িয়ে যদি সেলফি আপলোড দিতে পারেন তবে আপনি মুক্ত !
    আপনি সেটা পারবেন না আর , কারণ শরীরে পুশ করা ড্রাগ আপনার মস্তিষ্কে চলে যাবে ততোক্ষণে ! আপনি মোবাইলের স্ক্রীণে তখন নির্দেশ আসবে – ‘ নিচের দিকে তাকাও ! লাফ দাও , মুক্তি পাও ! ‘
    আপনি মুক্তি পেতে গিয়ে আত্মহত্যা করবেন !
    এই ব্লু হোয়েল গেমটিতে ব্যবহার করা হয়েছে চমৎকার গ্রাফিক্স , ব্যাক গ্রাউন্ড মিউজিক ভীষণ করুন ! All i want ও Ranway গানের মিউজিক ব্যবহার করা হয়েছে । দুটো মিউজিক শুনলেই শরীরের রক্ত হীম হয়ে যাবে !
    এসব গেইম থেকে দূরে থাকুন, জীবন কে ভালবাসুন। জীবন আসলেই অনেক সুন্দর, অনিন্দ্য।

    (গেমটির অাদ্যো-পান্ত অনলাইন থেকে নেয়া)

    সূত্রঃ নবীনগরের প্রতিধ্বনি ২৪

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    একজন মন্ত্রীর পুরনো দুই টিনের ঘর

    ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ | 2638 বার

    উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরন

    ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 1024 বার

    তিন বোনের এক স্বামী

    ০৫ জানুয়ারি ২০১৯ | 856 বার

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে nabinagar71.com