• শিরোনাম

    শয়তানের কান্না

    আহমদ মাজহারুল হক (আশরাফ) | মঙ্গলবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | পড়া হয়েছে 271 বার

    শয়তানের কান্না

    শয়তানের মন খুব খারাপ সে তার নিজের সিংহাসনে বসে খুব চিন্তিত । আশে পাশে শয়তানের সহযোগীরা বসে আছে চুপচাপ। কেউ কোন কথা বলছে না । হঠাত শয়তানের এক সহোযগী প্রশ্ন করলো, মহামান্য শয়তান কে। হুজুর আপনার মন এত খারাপ কেন ? আপনি তো মানুষের মনে বিষ দিয়ে আনন্দ পান? অথচো আপনি নিজেই আজ মনমরা ? কি হয়েছে শয়তানদের বাদশা? শয়তান মুখ তুলেন বলেন, শোন আমার সহযোগীগণ কেন আমার মন খারাপ| যেদিন আল্লাহর আরশে আল্রাহতালা আদম (আ:) কে সৃষ্টি করলো আর সকল কে বললো, আদম কে সেজদা করতে সেদিন আমি বিদ্রাহী হয়ে ওঠি । আমি আল্লাহ কে জানালাম, হে আল্লাহ আমি আদম কে সেজদা করতে পারবো না। আল্লাহ বলেন কেন পারবে না ? উত্তরে বলেছিলাম, আদম কাদামাটির তৈরী আর আমি আগুনের । আদমের চেয়ে আমি শ্রেষ্ঠ। এদিকে ফেরাশতারা বলেন, হে আল্লাহপাক মাটির আদম তো দুনিয়াতে ফেতনা ফেসাদ করবে । আমি শয়তান অহংকার করে দারিয়ে রইলাম।
    এমন যখন অবস্থা তখন আল্লাহ বলেন, আমি সর্বশক্তিমান, আমি আদি আনন্ত ।আমি যা জানি তোমরা তা জানো না । কিন্তু অামার অহংকার চরম রুপ ধারণ করলো ঠাই দারিয়ে রইলাম। আল্লাহ রাগ করলেন , আদেশ দিলেন আমাকে বেরিয়ে যেতে আল্লাহর আরশ থেকে । অামি বেরিয়ে যাবার সময় আল্লাহ কে বলাম, হে আল্লাহ আপনি মহান সকল ক্ষমতার মালিক । আপনি আমাকে বর দেন যেনো আমি আপনার মানুষদের ধোকা দিতে পরি । কুকথা বলে তাদের ক্ষতি করতে পারি। কুকাজ করাতে পারি। আল্লাহ বলেন এতটুকু চাও?। ঠিক আছে যাও আমি তোমাকে সে বর দিলাম। তবে মনে রেখে আমার যারা নেক বান্দা তারা কখনোই তোমার ধোকায় পথ হারা হবে না । অামি অার অামার নেক বান্দা বিজয়ী হবো।

    আমি তো তখন আনেক খুশী হয়েছিলাম । যাক আল্লাহর বান্দাদের ধোকা দেবার বর পেয়েছি। একদিন আমি ঠিকই জিতে যাবো। সকল মাটির মানুষ কে ধোকা দিয়ে বিপথে ফেলে অামি অাগুনের তৈরী শয়তান বিজয়ী হবো।

    সহযোগী বললো, এই কথা তো আমরাও জানি । আমরা যারা আপনাকে মানি । আপনি আপনার কাজটা ঠিকমতই করছেন । শত শত লোক আপনার ধোকায় আল্লাহর কাজ থেকে দূরে সরে গেছে।
    শয়তান ক্ষেপে গেলো, আরে থাম কথার মাঝে কথা বলিস কেন? আমার ফেতনা আমার উপর ফেলিস কেন? সাথে সাথে সহযোগীরা চুপ হয়ে গেলো।
    শয়তান হতাশ হয়ে আবার বলা শুরু করলো, আজ পৃথিবী ধ্বংসের দিকে আর কিছু কাল পরে হয়তো কেয়ামতের ডাক পরবে।
    এতদিন আমি যাদের বিপথে নিয়েছি তারা আল্লাহর দোজগে যাবে । আর যার আল্লাহ দেওয়া বিবেক বুদ্ধি কাজে লাগিয়ে শত কষ্ট সহ্য করেছে । আমার ধোকা কে পা ঠেলে এগিয়ে গিয়েছে তারা পাবে আল্লাহ বেহেশতের বাগান ।

    কিন্তু আমার কি হবে! আমি তো তখন বুঝতেই পারি নাই আল্লাহ কাছ থেকে বর নিয়ে আমি সবচেয়ে চরম ভুল করেছি । শুধু তাই নয়, আমি মহান আল্লাহ কাজ কে সহজ করে দিয়েছি । আল্লাহর নেক বান্দা আর খারাপ বান্দার মধ্যে পার্থক্য করার মুল কাজটাই আল্লাহ আমাকে দিয়ে করিয়ে নিচ্ছে। হায় তখন যদি আদম কে সেজদা করতাম তাহলে তো হিসাব নিকাশ অন্য রকম হতো।আল্লাহ বলেন, আল্লাহর এক নাম “মহাজ্ঞানী”। সেই জ্ঞানীশক্তির কাছে কখন যে আমি হেরে গেলাম টেরই পেলাম না।

    জগতের সকল মানুষ দোজগ বেহেশত পাবে । যার যার কর্ম্যফল অনুযাযী । আমি কি পাবো রে! তোরা কি কেউ বলতে পারবি ? আমার তো সবই গেলো! না আমি পারি আল্লাহর সাথে দেখা করতে, না পারি সহ্য করতে । হায় হায় এই ছিলো আমার কপালে!! এই কথা বলে শয়তান কান্নায় লুটিয়ে পরলো । শয়তানের কান্না দেখে তার সহযোগীরা তাকে ছেড়ে চলে যাচ্চিলো, আমনি শয়তান তাদের ধমক দিয়ে বললো ফিরে যাবার পথ নাই। কেয়ামত পযর্ন্ত বসে থাক। অামার অনুসারী হয়ে কাজ কর। তবে এই কথা পরিস্কার মাটির অাদমই অামার চেয়ে উত্তম। তাদের সাথে মহান অাল্লাহ অাছে। অার তিনি যাকে খুশী ক্ষমা করবেন।কিন্তু অামার কি হবে সেটা অাল্লাহই কবে নির্নয় করবে একমাত্র তিনিই জানেন।এই কথা বলে মহামান্য শয়তান হাউমাউ করে কান্না করতে লাগলো। শয়তানের কান্না দেখে তার মান্য কারী সহযোগী শয়তানগুলিও কান্নায় লুটিয়ে পরলো। তারা ভাবচ্ছে শয়তানের ফান্দে পরে তারাও সব হারালো…।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    পাপ ( ছোট গল্প)

    ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 257 বার

    কে এই বৃদ্ধ…

    ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 254 বার

    জামাই হিসেবে সাংবাদিকরা কেমন?

    ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | 247 বার

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে nabinagar71.com