• শিরোনাম

    নবীনগরে গৃহবধূকে নির্যাতন ! মীমাংসা নয় ডাইরেক্ট গ্রেপ্তার-মেহেদি হাসান

    নিউজ ডেস্ক | বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০ | পড়া হয়েছে 311 বার

    নবীনগরে গৃহবধূকে নির্যাতন ! মীমাংসা নয় ডাইরেক্ট গ্রেপ্তার-মেহেদি হাসান

    সংগ্রহীত

    ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের নোয়াগ্রামে আসমা বেগম (৩২) নামের এক গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় কায়দায় উলঙ্গ করে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে অমানবিক ভাবে নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

    নির্যাতন চলাকালে ৯৯৯ ফোন দেয়া হলে অভিযান চালিয়ে পুলিশ ওই নারীকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করা হয়েছে। এই ঘটনায় নির্যাতিতার স্বামী নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে চারজনকে আসামী করে নবীনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

    আসামীরা হলেন ওই একই গ্রামের মৃত আরিফ সরকারের ছেলে শরিফুল ইসলাম (শরীফ ডাক্তার), সাহেদ সরকার, জনি সরকার, শরীফুল ইসলামের স্ত্রী সীমা আক্তার।

    এই ঘটনায় গত সোমবার থানায় মামলা হওয়ার দুদিন পরও পার হলেও পুলিশ ঘটনাটি মিমাংসার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে উল্লেখ করে আসামিদের ধরছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে জেলার অতিরিক্তি পুলিশ সুপার (নবীনগর সার্কেল) মেহেদী হাসান বুধবার বিকালে জানান আমি ঘটনাস্থলে আছি। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করা হবে ।

    জেলার নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের নোয়াগ্রামের নজরুল ইসলামের স্ত্রী আসমা বেগমকে রবিবার বিকেলে পাশের শরীফ ডাক্তারের বাড়িতে ডেকে নেয়া হয়। সেখানে শরীফ মিয়া স্ত্রী সীমা আক্তার ও তার ভাই শাহেদ সরকার গৃহবধূ আসমার ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়।

    এক পর্যায়ে গৃহবধূকে উলঙ্গ করে লোহার রড দিয়ে ও বোতল দিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যতন চালানো হয়। ওই সময় আসমা একাধিকবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে নির্যাতনকারীরা পানি ঢেলে আসমাকে কয়েকবার জ্ঞান ফিরিয়ে এনে পূনরায় মারধর করতে থাকেন।

    এক পর্যায়ে আসমার আর্ত চিৎকারে তার স্বামী নজরুল তার স্ত্রীকে বাঁচানোর জন্য তার নিকট আত্মীয় মোসলেমকে দিয়ে ৯৯৯ ফোন করান।

    ফোন পেয়ে নবীনগর থানার এএসআই মো. আশরাফ উদ্দিন ঘটনাস্থলে পৌঁছে আসমাকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে নবীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করান।

    স্বামী নজরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, শরীফ ডাক্তার ও তার ভাইদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক বিরোধ চলছিল। এছাড়া শরীফ ডাক্তারের ভাই সাহেদ সরকার তার স্ত্রীকে প্রায়ই কু-প্রস্তাব দিতেন।

    কিন্তু এতে আসমা রাজি না হওয়ায় পরিকল্পিতভাবে বাড়িতে ডেকে নিয়ে চুরির অপবাদ দিয়ে এই অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়।

    এই বিষয়ে অভিযুক্তদের সাথে বারবার চেষ্টা করেও কথা বলা যায়নি। তবে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আসমাকে উদ্ধার করা পুলিশের এএসআই আশরাফ উদ্দিন বলেন, আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে মুমূর্ষ অবস্থায় গৃহবধূকে উদ্ধার করি।

    তবে আসমা পাঁচ লাখ টাকা চুরি করায় শরীফ ডাক্তারের বাড়ির লোকজন তাকে মারধর করেছেন বলে নির্যাতনকারীরা আমার কাছে অভিযোগ করেন। এদিকে হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতড়ানো অবস্থায় নির্যাতিতা আসমা জানান, আমি শরীফ ডাক্তারের ভাইয়ের কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় অনেকদিন ধরেই আমার ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন।

    ঘটনার দিন আমাকে তাদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে আমার বিরুদ্ধে চুরির অপবাদ দেয়। পরে লোহার রড, পেপসির বোতল ও রুটি বানানোর বেলুন দিয়ে আমাকে বেধড়ক পেটানো হয়। এ সময় তিনি আরও জানানঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য এলাকার প্রভাবশালীরা মামলা তুলে নেওয়ার চাপসহ সমঝোতার চেষ্টা করছেন।

    এই ব্যাপারে জেলা পুলিশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নবীনগর সার্কেল) মেহেদী হাসান জানান , কোন মীমাংসা নয়, আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    নবীনগরে ভুয়া ডাক্তার আটক

    ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | 7716 বার

    নবীনগরে অস্ত্র সহ গ্রেপ্তার ১

    ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ | 3085 বার

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে nabinagar71.com