• শিরোনাম

    ছাত্রলীগ নেতা মাহাবুব রহমানের মুক্ত চিন্তা।

    বাংলাদেশে মাদকের বিরুদ্ধে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ চালিয়ে কি সাফল্য পাওয়া যাবে?

    নিউজ ডেস্কঃ- | বৃহস্পতিবার, ০৭ জুন ২০১৮ | পড়া হয়েছে 1300 বার

    বাংলাদেশে মাদকের বিরুদ্ধে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ চালিয়ে কি সাফল্য পাওয়া যাবে?

    বাংলাদেশে মাদকের বিরুদ্ধে 'বন্দুকযুদ্ধ' চালিয়ে কি সাফল্য পাওয়া যাবে?

    বর্তমান প্রেক্ষাপট বাংলাদেশে অবৈধ মাদক ব্যবসার বিরুদ্ধে র‍্যাব-পুলিশের অভিযানে বন্দুকযুদ্ধে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় অনেক নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে গ্রেফতারের সংখ্যাও কিন্তু কম নয়।

    সারাদেশে কয়েক হাজার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করার কথাও পুলিশ বলছে। এসব অভিযানে নিহত গ্রেফতার নিয়ে নানান প্রশ্ন উঠলেও মাদক বেচাকেনা থামছে না। এবার আসা যাক কিভাবে এই মাদক থেকে দেশ-তথা জাতি কে রক্ষা করা যেতে পাড়ে ।

    (১)আমাদের ধর্মীয় অনুশাসন অনুযায়ী সকল মাদক-দ্রব্য কে হারাম করা হয়েছে। রাষ্ট্রের উচিত হবে আইন করে সকল প্রকার মাদক-দ্রব্য কেনা-বেচা ও সেবন করা কে নিষিদ্ধ করা। আর তা না হলে কোন কালেই মাদকের হাত থেকে আগামি প্রজন্ম কে রক্ষা করা যাবে না।

    (২) প্রত্যেক টা রাজনৈতিক দল কে আগে সচেতন হতে হবে,তারা তাদের নেতৃত্ব নির্বাচনের সময় মাদক সেবন ও বিক্রয়কারি কে তাদের দলে অর্ন্তভুক্ত না করা।আর কোন ধরনের অপরাধীর জন্য থানায় সুপারিশ না করা।

    (৩) স্থানীয় প্রশাসন কে থাকতে হবে নিরপেক্ষ ও ঘুষ মুক্ত।সন্ধায় এনে রাতে টাকা নিয়ে ছেড়ে দিলে মাদক নির্মূল হবেনা।

    (৪)স্ব -স্ব ধর্মে মাদক ব্যবহারে যে বিধি-নিষেধ গুলো আছে ও স্বাস্থ্যগত দিক থেকে ক্ষতিকর, সে ব্যাপারে সচেতনতা মূলক প্রচার-প্রচারনা করতে হবে।

    (৫) চলমান মাদকবিরোধী অভিযানকে বাহবা দিচ্ছে সবাই। আমি মনে করি এ ধরনের অভিযান চলমান থাকা দরকার। কিন্তু এই প্রক্রিয়ায় মাদক নির্মূল করা সম্ভব না। বর্তমান প্রক্রিয়ায় হয়তো আপাত সফলতা আসবে, কিছুদিনের জন্য দমন করে রাখা যাবে, কিন্তু মাদক নির্মূল করার জন্য এটা যথেষ্ট নয়। মাদক নির্মূল করতে হলে মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে।

    (৬) কেবল অভিযান চালিয়ে মাদক নির্মূল করা সম্ভব নয়। সচেতনতা দিয়ে অনেক কিছু নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। অভিভাবকেরা সচেতন হলে ৮০ ভাগ মাদক নির্মূল সম্ভব। বাকি ২০ ভাগ পুলিশসহ অন্যান্য সংস্থা নিয়ন্ত্রণ করবে। এ ছাড়া মাদকের কড়াল-গ্রাস থেকে যুব সমাজ কে রক্ষা করা সম্ভব নই।

    (৭) বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মদ,জুয়া ও পতিতাবৃত্তি নিষিদ্ধ করেছিলেন,কিন্তু পরবর্তী সরকার তা আবার চালু করেন যার ফল আমাদের অনেকটা সময় ধরে দিতে হচ্ছে।তাই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ন্যায় বঙ্গ কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা কে, সেই একই পদক্ষেপ নিয়ে মাদক, জুয়া-পতিতাবৃত্তি কে নিষিদ্ধ করতে হবে।।

    মাহাবুব রহমান সহ-সভাপতি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নবীনগর পৌর শাখা।।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ভালবাসার একজন ইউএনও

    ১৫ জানুয়ারি ২০১৮ | 1058 বার

    আমার বন্ধুর জন্মদিন!!

    ১৪ মে ২০১৮ | 815 বার

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে nabinagar71.com